Home / মিডিয়া নিউজ / আকাশ ছোঁয়া কাবিনের মধ্যে দিয়ে সম্পন্ন হলো ডিপজলের ছেলের বিয়ে

আকাশ ছোঁয়া কাবিনের মধ্যে দিয়ে সম্পন্ন হলো ডিপজলের ছেলের বিয়ে

জনপ্রিয় চিত্রনায়ক মনোয়ার হোসেন ডিপজলের ছেলে শাদমান মনোয়ার বিয়ে উপলক্ষ্যে ব্যাপক

ভাবে জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন চলছে বেশ কয়েকদিন ধরেই। গত রোববার (৫ জুন)

সন্ধ্যায় সাভারে পরিবার ও স্বজনদের নিয়ে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান হয়। বর-কনের পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে নাচ,

বিয়ের নানান অনুষ্ঠানে মেতেছিলে উপস্থিত অতিথিরা। আজ ৮ জুন মিরপুরে ধুমধামের সাথে ডিপজলের ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে। কনের নাম কাজী তাসফিয়া।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্র জগতের খলনায়ক ও অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল। সিনেমার পর্দায় নেতিবাচক ও ইতিবাচক দুই চরিত্রেই অভিনয় করেছেন এই অভিনেতা।

তবে তিনি ভিলেন হিসেবেই বেশি পরিচিত। যদিও বাস্তব জীবনে নায়কের ভূমিকায় দেখা গেছে ডিপজলকে। চলচ্চিত্র জগতে তিনি দানবীর নামেও পরিচিত। কোটি টাকার কাবিনে ছেলেকে বিয়ে করলেন ভিলেন ডিপজল। কোটি টাকার কাবিননামায় বড় ছেলে সাদ্দাম সৌমিক অমিকে বিয়ে করেছেন মনোয়ার হোসেন ডিপজল। কাজী তাসফিয়া নামে চাঁদপুরের এক তরুণীর সঙ্গে ছেলের বিয়ে দেন। প্রিন্স বাজার সুপার মলের মালিক ও প্রিন্স গ্রুপের পরিচালক কাজী মানিকের মেয়ে তাসফিয়া। কাজী মানিক চাঁদপুর সদর উপজেলার তরপুরচন্ডি কাজীবাড়ির ছেলে। যিনি চাঁদপুরে তাজমহলের আদলে দৃষ্টিনন্দন মসজিদ মাদ্রাসা এবং চিকিৎসা সেবার জন্য লাজ্জাতুন্নেছা বেসরকারি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেন।

কাজী তাসফিয়ার আরেকটি পরিচয় হলো, তিনি চাঁদপুর সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়নের (সাবেক সাখুয়া) সাবেক চেয়ারম্যান ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ

নেতা আব্দুল মান্নান খান মনা খানের মেয়ের নাতনি। মোনা খানের একমাত্র মেয়ে স্বপ্না বেগমের মেয়ে কাজী তাসফিয়া। বিয়ের কাবিন শেষে একবার সপরিবারে চাঁদপুর বেড়াতে আসেন ডিপজল। বুধবার (৮ জুন) সন্ধ্যায় মিরপুরের প্রিন্স বাজার কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। বিয়ের অনুষ্ঠানে রাজকীয় পোশাকে হাজির হন দুই পরিবারের সদস্যরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা সুজিত রায় নন্দী, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আবু নঈম পাটোয়ারী দুলালসহ রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও চলচ্চিত্র তারকারা। ডিপজলের ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠান হবে না সবার, তাই কি হয়। এবার জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে প্রায় ১০ হাজার অতিথির সঙ্গে একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পুত্রবধূকে বাড়িতে নিয়ে যাবেন অভিনেতা।

গত ৫ জুন সাভারের লাজ পল্লীতে পরিবার-পরিজন নিয়ে সৌমিক-তাসফিয়ার গায়ে হলুদ সম্পন্ন হয়েছে। আগামীকাল শুক্রবার (১০ জুন)। অনুষ্ঠানে প্রায় ১০ হাজার অতিথি থাকবেন।

এদিন বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে বিবাহোত্তর সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়েছে। ডিপজল বলেন, ‘করোনার কারণে আমি আত্মীয়-স্বজন, বন্ধুবান্ধব, আমার চলচ্চিত্রের সহকর্মী, রাজনৈতিক ও ব্যবসায়ী বন্ধুদের বলতে পারিনি। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়েছে। তাই এবার সবার সঙ্গে পারফর্ম করছি। সবাই আমার ছেলে ও মেয়ের জন্য দোয়া করবেন। ডিপজলের তিন ছেলে ও এক মেয়ে। এর আগে ২০১৮ সালের জুনে মেয়ে অলিজা মনোয়ারকে বিয়ে দিয়েছিলেন অভিনেতা। এবার তাদের বাড়িতে আসছেন বড় মেয়ের জামাই।

উল্লেখ্য, কান চলচ্চিত্র উৎসবে, দীপিকা পাড়ুকোন একটি সাদা শাড়ি পরেছিলেন এবং গলায় মুক্তার মালা ঝুলিয়েছিলেন। এবার সাদা শাড়িতে ভারী মুক্তার মালা পরেছেন মনোয়ার হোসেন ডিপজলের একমাত্র মেয়ে অলিজা মনোয়ার। সম্প্রতি সাদ্দামের ভাই সৌমিক আমিরকে হলুদের মালা পরিয়ে দেন অতিথিরা। সাধারণত এমন নেকলেস দেখা যায় না। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওলিজা দেশের একটি জনপ্রিয় গনমাধ্যমকে বলেন, থাই মুক্তা দিয়ে নেকলেসটি তিনি নিজেই তৈরি করেছেন। এটিতে পাঁচ প্রকারের ৬-৮টি সারি রয়েছে। প্রতিটি সারিতে ৬০ টিরও বেশি মুক্তা রয়েছে। ওজন ৬ কেজি। ওলিজার এই হার তৈরি করতে পাঁচ দিন সময় নিয়েছেন। মুক্তাগুলি থাইল্যান্ড থেকে আনা হয়েছিল এবং এর স্ট্রিংগুলিতে অস্ট্রেলিয়ান সোনা ব্যবহার করা হয়েছিল।

Check Also

মেয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে মুখ খুললেন মিথিলা

তাহসানের সঙ্গে ১১ বছরের সংসার জীবনের সমাপ্তি ঘটানোর পর কলকাতার পরিচালক সৃজিত মুখার্জির সঙ্গে গাঁটছড়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published.