Home / মিডিয়া নিউজ / নোয়াখালীতে গিয়ে এ কী হাল ফেরদৌস-পূর্ণিমার!

নোয়াখালীতে গিয়ে এ কী হাল ফেরদৌস-পূর্ণিমার!

নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় শুরু হয়েছে ‘গাঙচিল’ ছবির শেষ লটের শুটিং।

নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল পরিচালিত এ ছবির শুটিংয়ে অংশ নিয়েছেন ফেরদৌস-পূর্ণিমা আর আনিসুল হক মিলন।

গল্প ও চরিত্রের প্রয়োজনে শিল্পীদের যেমন প্রচ’ণ্ড গ’রমে জ্যাকেট গায়ে মা’রামা’রি করতে হয়,

তেমনি শীতের দিনে কাদা মেখেও নদীর শীতল পানিতে নামতে হয়। এমন অনেক কষ্টের ফসল একটি চলচ্চিত্র। গতকাল রোববার শীতের সকালে কাদা মেখে শুট করেন ফেরদৌস-পূর্ণিমা।

শট দেওয়ার পর কাদা উৎসবে মাতেন নির্মাতা ও শিল্পীরা। শুটিংয়ের একটি ভিডিও ফেসবুকে প্রকাশ করেছেন মেকআপম্যান মোহাম্মদ খলিল। সেখানে দেখা যায়, নায়ক ফেরদৌসের কাদামাখা শরীর। তিনি সহকারী পরিচালক আবুল কামাল আজাদকে জড়িয়ে ধরে তাকে কাদা মাখিয়ে দিচ্ছেন।

এমন সময় আজাদের দিকে এগিয়ে যান নায়িকা পূর্ণিমা, তার শরীরও কাদামাখা। দুজন যখন আজাদকে কাদা মাখাচ্ছিলেন, তখন এগিয়ে আসেন ছবির আরেক অভিনেতা আনিসুর রহমান মিলন। তিনজন মিলে যখন আজাদকে কাদা মাখাচ্ছেন, তখনই ফেরদৌসের চোখ যায় মেকআপম্যান মোহাম্মদ খলিলের দিকে। তিনি সেদিকে এগিয়ে যান। জড়িয়ে ধরে খলিলকে কাদা মাখাতে শুরু করেন। তার সঙ্গে যোগ দেন পূর্ণিমাও। চলে কাদা মাখামাখি।

ফেরদৌস বলেন, গতকাল কাদা মেখে শুটিং করেছি। ঢাকা ও তার আশপাশে এখন শীত কিছুটা কম হলেও আমরা যেখানে শুটিং করছি, সেখানে শীতটা এখনো আছে। এই শীতে কাদা মেখে শুট করাটা বেশ কষ্টের। আমার সঙ্গে পূর্ণিমা ও মিলনকেও কাদা মাখতে হয়। আমরা শীতে কাঁপছিলাম, আর অনেকে মজা নিচ্ছিল। পরে শট শেষ করে মনে হলো একটু কাদা উৎসব করি।

Check Also

মেয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে মুখ খুললেন মিথিলা

তাহসানের সঙ্গে ১১ বছরের সংসার জীবনের সমাপ্তি ঘটানোর পর কলকাতার পরিচালক সৃজিত মুখার্জির সঙ্গে গাঁটছড়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published.