Home / মিডিয়া নিউজ / বাংলাদেশি ফুল টাইম অভিনেত্রীরা এখন আমেরিকার ফুল টাইম সংসারী!

বাংলাদেশি ফুল টাইম অভিনেত্রীরা এখন আমেরিকার ফুল টাইম সংসারী!

সংসার। তিন অক্ষরের এই শব্দটির সঙ্গে জড়িয়ে আছে সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না। সংসার করে হয়তো

কেউ সুখি অথবা কেউ দুঃখী। আর এই নিয়েই তো জীবন। সেই সংসার জীবনে কিছু চাওয়া থাকে,

কিছু পাওয়া থাকে। কখনও পূরণ হয়, আবার কখনও পূরণ হয়না। কিন্তু তাই বলে তো আর থেমে নেই জীবন। অনেক স্বপ্ন নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছে জীবন।

বেঁচে থাকতে হলে প্রয়োজন জীবিকার।সেই জীবিকার তাগিদেই সবাই যে যার মতো ব্যস্ত হয়ে পড়েন। অথচ এই সংসার নিয়েই নিজেদের কর্মের জায়গা ছেড়ে দিয়ে শুধুমাত্র সংসার নিয়েই ব্যস্ত রয়েছেন এক সময়কার জনপ্রিয় তারকারা। তারা হলেন অভিনেত্রী রোমানা, বিন্দু, নাফিজা ও প্রিয়া ডায়েস। তারা অভিনয়ের মাধ্যমে নিজেদের ক্যারিয়ার গড়লেও পরবর্তীতে তারা হয়ে উঠেছেন ‘ফুলটাইম সংসারী’। অভিনয় তো ছেড়েছেন, সেই সঙ্গে ছেড়েছেন নিজের দেশও। আমেরিকায় এই ফুলটাইম সংসারীদের নিয়েই আজকের বিশেষ আয়োজন।

রোমানা খান: জনপ্রিয় অভিনেত্রী রোমানা খান। এ মুহূর্তে আমেরিকাতে অবস্থান করছেন। স্থায়ীভাবেই বাস করছেন নিউইয়র্কে। দেশে ফিরবেন কি ফিরবেন না, এমন কিছুই জানা যায়নি। গত বছরই বিয়ে করেছিলেন আমেরিকার বাংলাদেশি প্রবাসী ও ব্যবসায়ী এলিন রহমানকে। এরপর থেকে স্বামীর সঙ্গে সেখানেই স্থায়ী হয়েছেন রোমানা। বিয়ের পর বেশ সুখেই আছেন জনপ্রিয় এ অভিনেত্রী। আর সেটা তার ফেসবুক প্রোফাইলে গিয়ে দেখলে বোঝা যায়। নিউইয়র্কে থাকার কারণে দেশের শোবিজ অঙ্গনের বন্ধুদের সঙ্গেই যোগাযোগ নেই রোমানার। শুধু তাই নয়, বিয়ের পরপরেই তিনি ঘোষণা দিয়ে অভিনয় ছেড়ে দেন। ব্যস্ত হয়ে ওঠেন তার সংসার জীবন নিয়ে।

আফসানা আরা বিন্দু: বিন্দু লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগীর মাধ্যমে তার অভিনয় জীবন শুরু করেন। যদিও তিনি সেখানে প্রথম রানার আপ হয়েছিলেন। বিন্দুর প্রথম চলচ্চিত্র হুমায়ূন আহমেদের ‘দারুচিনি দ্বীপ’ ছিল ব্যবসায়িকভাবে সফল। ধীরে ধীরে তিনি মডেল এবং উপস্থাপক হিসেবেও খ্যাতি লাভ করেন। এরপর ‘জাগো’ তার আরও একটি ব্যবসাসফল চলচ্চিত্র। বিন্দু অসংখ্য জনপ্রিয় টেলিফিল্ম, নাটক, মডেলিং এবং বিজ্ঞাপণ চিত্রে কাজ করেছেন। তার সর্বশেষ অভিনীত ‘এইতো প্রেম’ চলচ্চিত্রটি গত ১৩ মার্চ ২০১৫ মুক্তি পায়। কিন্তু এর আগে ২০১৪ সালের ২৪ অক্টোবর আমেরিকা প্রবাসী আসিফ সালাহউদ্দিন মালিকের সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে যান। তারপর থেকেই তিন আর অভিনয়ে নিয়মিত হতে পারেননি। তার ঘোষণা দিয়েই মিডিয়া ছেড়ে দেন তিনি। স্বামীর সঙ্গে আমেরিকাতে এখন বর্তমানে সংসার নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন বিন্দু।

নাফিজা জাহান: লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার মঞ্চ থেকে মিডিয়াতে নাম লেখান নাফিজা জাহান। নাটক ও টেলিফিল্মে নিজেকে প্রমাণ করেন, হয়ে ওঠেন ব্যস্ত তারকা। তবে ২০১৩ সালের মাঝামাঝি দেশ ছাড়েন তিনি, পাড়ি জমান আমেরিকায়। ছয় মাস পরে দেশে ফিরে এসেছিলেন নাফিজা, হাতেগােনা কয়েকটি কাজ করে আবারও উড়াল দেন যুক্তরাষ্ট্রে। গুঞ্জন শােনা যায় সংগীতশিল্পী এস আই টুটুল ও অভিনেত্রী তানিয়া আহমেদের ভাগ্নে দীপকে বিয়ে করেছেন নাফিজা। তবে তিনি নিজেই বিয়ের খবর অস্বীকার করে সমালোচিত হন- কারণ যুক্তরাষ্ট্রে একসঙ্গেই থাকতেন তারা। মিডিয়াতে কাজ করার সময় শরীর সচেতন থাকলেও বিদেশে পড়াশােনা এবং গুঞ্জনে থাকা সংসার করতে গিয়ে বেশ স্বাস্থ্যবান হয়েছেন নাফিজা। দেখলেই বোঝা যায়, অনেকদিন মিডিয়াতে অনুপস্থিত তিনি। তিনিও আর অভিনয়ে ফিরছেন না। মোটকথা আমেরিকাতেই গুঞ্জনে থাকা সংসার নিয়েই তিনি ব্যস্ত রয়েছেন।

প্রিয়া ডায়েস: প্রিয়া ডায়েস ও টনি ডায়েস বাংলাদেশের টিভি নাটকের এক সময়ের পরিচিত মুখ। অনেক বছর হলো অভিনয় থেকে দূরে সরে রয়েছেন তারা। শুধু যে দূরে তা কিন্তু নয়, এই দম্পতি বর্তমানে দেশ ছেড়ে রয়েছেন আমেরিকাতে। ডায়েস দম্পতি ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন ‘২০০১ সালের ১৪ই ফেব্রুয়ারী’। তাদের একমাত্র কন্যা ‘অহনা’ পড়াশোনায় ভাল। সে এখন স্থানীয় একটি স্কুল থেকে মিডেল ক্লাস শেষ করেছে। টনি ডায়েসের ফেসবুকে প্রবেশ করলে দেখতে পাওয়া যায় তিনি নিয়মিত ছবি আপলোড করেন। আমেরিকার বিভিন্ন জায়গাতে বিভিন্ন সময় পরিবার নিয়ে ঘোরার ছবি আপালোড করেন। হাস্যজ্জ্বল তাদের ছবি দেখে বোঝা যায় বেশ ভালো আছেন জনপ্রিয় এই দম্পতি। সম্প্রতি পাঁচ বছর পর দেশে এসেছেন প্রিয়া। ফিরে যাবেন আবার তিন সপ্তাহ পর।

পরিশেষে কথা হচ্ছে, তারা গুণী অভিনেত্রী হলেও তাদের গুণ এখন সংসারে। তারা ঠিক যে ভাবে মন দিয়ে অভিনয় করেছিলেন ঠিক সেই ভাবেই মন দিয় সংসারে ব্যস্ত। হয়ত তারা আর কখনও ফিরে আসবেন না অভিনয়ে।-প্রিয়.কম

Check Also

মেয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে মুখ খুললেন মিথিলা

তাহসানের সঙ্গে ১১ বছরের সংসার জীবনের সমাপ্তি ঘটানোর পর কলকাতার পরিচালক সৃজিত মুখার্জির সঙ্গে গাঁটছড়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published.