Home / মিডিয়া নিউজ / জন্মদিনে সুপারস্টার মহেশ বাবু সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য

জন্মদিনে সুপারস্টার মহেশ বাবু সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য

মহেশ বাবু একজন ভারতীয় অভিনেতা। দক্ষিণে চলচ্চিত্রের সুপারস্টার হিসেবে তিনি পরিচিত।

পারিবারিক নাম মহেশ ঘাট্টামানেনি। তিনি ১৯৭৪ সালের ৯ আগস্ট জন্ম গ্রহণ করেন। বাবা কৃষ্ণ

ঘাট্টামানেনি অভিনেতা হওয়ার সুবাদে চার বছর বয়সেই মহেশ ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানোর সুযোগ পায়।

১৯৭৯ সালে নিদ চলচিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে তার অভিনয় জীবন শুরু হয়। ১৯৯৯ সালে মুক্তি পাওয়া রাজাকুমারুডু ছবিতে তিনি প্রথম নায়কের চরিত্রে অভিনয় করেন।

২০০৩ সালে ব্লকবাস্টার হিট চলচিত্র ওক্কাডু তে তিনি একজন তরুন কাবাডি খেলোয়ারের ভূমিকায় করেন। ওক্কাডু সেই সময়ে সর্বোচ্চ আয় করা সিনেমা। সিনেমাটি ভারতের অন্যান্য ভাষায় পূন:নির্মিত হয়। ২০০৫ সালে আতাডু সিনেমার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক পরিচিতি লাভ করেন। আতাডু দক্ষিণে ছবির আরেকটি সর্বোচ্চ আয় করা ব্লকবাস্টার।

২০০৬ সালে পকিরিতে অভিনয় করে। দুবাইয়ে ৭ম আইআইফা এওয়ার্ডসে ছবিটির প্রিমিয়ার শো প্রদর্শিত হয়। এই ব্লকবাস্টার চলচ্চিত্রটি তামিল, হিন্দী এবং কানাড়া ভাষায় পূননির্মিত হয়।

২০১১ সালে এই সুপারস্টারের অভিনীত দোকুদু চলচ্চিত্র প্রথম তেলুগু চলচ্চিত্র যা একই সাথে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মুক্তি দেয়া হয়। উত্তর, পূর্ব এবং পশ্চিম ভারতের ২১ টি শহরে ছবিটি প্রদর্শিত হয়। প্রথম তেলুগুভাষী চলচ্চিত্র হিসেবে দোকুদু একসাথে এক বিলিয়ন ভারতীয় রুপি আয় করে।

ছবিটি সম্পর্কে লস এঞ্জেলস টাইমস পত্রিকার শিরোনাম ছিলো, “The biggest hit you’ve never heard of”। ২০১৪ সালে তিনি মনস্তাত্বিক চলচ্চিত্র নেনোক্কাডিনে অভিনয় করেন। প্রথম সপ্তাহেই ছবিটি ১.২২৫ মিলিয়ন ডলার আয় করে। তার অভিনীত বক্স অফিসে সাড়া জাগানো চলচ্চিত্রগুলো হচ্ছে মুরারী(২০০১), বিজনেস ম্যান(২০১২) এবং শিথামা ভকিতলো সিরিমাল্লে চেট্টু (২০১৩)।

মহেশ বাবু বলিউড অভিনেত্রী এবং সাবেক মিস ইন্ডিয়া নম্রতা শিরোদকর এর সাথে পাঁচ বছর প্রেম করেন। নম্রতা ভামসি চলচ্চিত্রে মাহেশের সহ-শিল্পী হিসেবে কাজ করেন। ২০০৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারী মুম্বাই শহরে তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের দুটি সন্তান আছে। পূত্র গৌতম কৃষ্ণ (জন্ম ৩১ আগস্ট ২০০৬) এবং কন্যা সিতারা (জন্ম ২০ জুলাই ২০১২)। ৪২ বছরে পা দিলেন এই দক্ষিণে সুপারস্টার।

তিনি সাতটি রাজ্য নন্দী পুরষ্কার, চারটি ফিল্মফেয়ার সেরা অভিনেতা, তিনট সিনেমা পুরষ্কার এবং একটি দক্ষিণ ভারতীয় আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেছেন। তিনি অন্ধ্র প্রদেশ এবং দক্ষিণ ভারতের বেশ কিছু পণ্যের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে কাজ করেন। তিনি থামস আপের জাতীয় শুভেচ্ছা দূত। ইন্ডিয়া টাইমস গ্রুপ পরিচালিত অনলাইন সমীক্ষা ‘টাইমস মোস্ট ডিজার্যা বল মেন ২০১৩’ তে তিনি সব থেকে আকর্ষণীয় পুরুষ হিসেবে নির্বাচিত হন। ২০১৩ সালে ব্যবসা ম্যাগাজিন ফোর্বস পরিচালিত ‘ফোর্বস ইন্ডিয়াস ১০০ সেলিব্রেটি ১০০’ তে ৩১ তম নির্বাচিত হন।

Check Also

চিত্রনায়ক রুবেলের কাছে পপি ‘স্পেশাল’!

ঢাকাই ছবিতে মার্শাল আর্ট ব্যবহার যার মাধ্যমে সেই চিত্রনায়ক রুবেল বাংলা ছবির দর্শকদের অনেক জনপ্রিয় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.