Home / মিডিয়া নিউজ / সৌমিত্রের আদি বাড়ি ছিল বাংলাদেশের যে জেলায়

সৌমিত্রের আদি বাড়ি ছিল বাংলাদেশের যে জেলায়

কলকাতার বিনোদন জগতের অন্যতম নামকরা অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় তিনি দীর্ঘ কয়েক দশক

ধরে অভিনয় এর সাথে জড়িত ছিলেন এবং তার সুনিপুণ অভিনয় দক্ষতা সাধারণ মানুষকে মুগ্ধ করে দিয়েছিল।

সম্প্রতি গুণী এই অভিনেতা করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়ে পড়েন এবং পরবর্তীতে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা

হয়েছিল তবে সেখানে থাকা অবস্থায় শোনা গিয়েছিল তার অবস্থার কিছুটা উন্নতি

হয়েছে কিন্তু আদতে তা হয়নি এর কিছুদিন পরে তিনি চলে গেলেন না ফেরার দেশে

চট্টোপাধ্যায় পরিবারের আদি বাড়ি ছিল বাংলাদেশের কুষ্টিয়ার শিলাইদহের কাছে কয়া গ্রামে। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের পিতামহের আমল থেকে চট্টোপাধ্যায় পরিবারের সদস্যরা নদিয়া জেলার কৃষ্ণনগরে থাকতে শুরু করেন।

সৌমিত্রর ফুফু তারা দেবীর সঙ্গে ’স্যার’ আশুতোষ মুখোপাধ্যায়ের জ্যেষ্ঠ পুত্র কলকাতা হাইকোর্টের জাস্টিস রমাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের বিবাহ হয়। সৌমিত্রর পিতৃদেব

কলকাতা হাইকোর্টে ওকালতি করতেন এবং প্রতি সপ্তাহান্তে বাড়ি আসতেন। সৌমিত্র পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেন কৃষ্ণনগরের সেন্ট জন্স বিদ্যালয়ে। তারপর পিতৃদেবের চাকরি বদলের কারণে সৌমিত্রর বিদ্যালয়ও বদল হতে থাকে এবং উনি বিদ্যালয়ের পড়াশোনা শেষ করেন হাওড়া জিলা স্কুল থেকে।

তারপর কলকাতার সিটি কলেজ থেকে প্রথমে আইএসসি এবং পরে বিএ অনার্স (বাংলা) পাস করার পর পোস্ট গ্র্যাজুয়েট কলেজ অফ আর্টস-এ দু-বছর পড়াশোনা করেন।

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়-এর সর্বপ্রথম কাজ প্রখ্যাত চলচিত্র নির্মাতা সত্যজিৎ রায়-এর অপুর সংসার ছবিতে যা ১৯৫৯ খ্রিষ্টাব্দে নির্মিত হয়। ছবিটি পরিচালকের ৫ম চলচিত্র পরিচালনা। তিনি এর আগে রেডিওর ঘোষক ছিলেন এবং মঞ্চে ছোটো চরিত্রে অভিনয় করতেন। ধীরে ধীরে তিনি সত্যজিৎ রায়ের সঙ্গে ১৪টি ছবিতে অভিনয় করেন।

তিনি সত্যজিৎ রায় নির্মিত বিভিন্ন ছবিতে বিভিন্ন চরিত্রে আবির্ভূত হন। তার অভিনীত কিছু কিছু চরিত্র দেখে ধারণা করা হয় যে তাকে মাথায় রেখেই গল্প বা চিত্রনাট্টগুলো লেখা হয়। সত্যজিৎ রায়-এর দ্বিতীয় শেষ চলচিত্র শাখা প্রশাখা-তেও তিনি অভিনয় করেন।

তার অভিনীত চরিত্রগুলোর ভিতরে সবথেকে জনপ্রিয় হলো ফেলুদা। তিনি সত্যজিৎ রায়ের পরিচালনায় সোনার কেল্লা এবং জয় বাবা ফেলুনাথ ছবিতে ফেলুদার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন।

প্রথমে ফেলুদা চরিত্রে তার চেয়েও ভালো কাউকে নেওয়ার ইচ্ছে থাকলেও তার অভিনীত ফেলুদার প্রথম ছবি সোনার কেল্লা বের হওয়ার পর সত্যজিৎ রায় স্বীকার করেন যে, তার চেয়ে ভালো আর কেউ ছবিটি করতে পারতনা।

কলকাতার অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় আর নেই কলকাতার কিংবদন্তি পরিচালক সত্যজিৎ রায়ের বিভিন্ন ছবিতে তিনি বিভিন্ন

চরিত্রে আবির্ভূত হয়েছিলেন এবং সেখান থেকেই তার নাম ডাক হয়েছিল সেই থেকেই সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় জনপ্রিয় একজন অভিনেতা হয়ে উঠেছিলেন এবং এখনও পর্যন্ত তিনি ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন পর্দার বাইরের মানুষ হিসেবেও তিনি খুবই সহৃদয়বান একজন মানুষ

Check Also

মেয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে মুখ খুললেন মিথিলা

তাহসানের সঙ্গে ১১ বছরের সংসার জীবনের সমাপ্তি ঘটানোর পর কলকাতার পরিচালক সৃজিত মুখার্জির সঙ্গে গাঁটছড়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published.