Home / মিডিয়া নিউজ / দ্বিতীয় জীবন পেলেন গায়ক তৌসিফ

দ্বিতীয় জীবন পেলেন গায়ক তৌসিফ

জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন জনপ্রিয় এই কন্ঠশিল্পী। তার শরীরের

মেরুদণ্ডে ধরা পড়ে টিউমার । শরীরের এমন একটা গুরুত্বপূর্ণ অংশে এমন সমস্যায় বেশ বিব্রত তিনি।

এছাড়াও তার রয়েছে ডায়াবেটিসের সমস্যা। এরপর টিউমারের অস্ত্রোপচার করান।

এরপর কিছুটা সুস্হ হলেও মাঝে মাঝে অসুস্হতা বোধ করেন তিনি।

গেল ঈদের দিন তৌসিফ মৃত্যুর দোয়ার থেকে বেঁচে ফিরেছেন। সেদিনের ঘটনার অভিজ্ঞতা জানিয়ে আজ শুক্রবার তিনি একটি স্ট্যাটাস দেন।

তার স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো। ’ঈদের দিন বিকেল বেলা, ১১ মিনিটের মত আমার হৃদ স্পন্দন প্রক্রিয়া পুরোপুরি বন্ধ, আমার সহধর্মিণী মানে আমার বউ তখনও নাকি নাছোড়বান্দা আমার হৃদ স্পন্দন ফিরিয়ে আনতে। বার বার আমার বুকে দুহাতে জোরে জোরে মারছে আর চিৎকার করে বলছে আমাকে ফিরে আসতে। সবাই তাকে সান্তনা দিয়ে বলছিলো কিন্তু সে নাকি কারো কোনো কথাই শুনছিল না।’

তিনি আরও লিখেন, ঠিক ১১ মিনিট পর আমার চোখ খুললো, দেখলাম শত শত মানুষ আমাকে ঘিরে আছে আর আমার মাথাটা আমার সহধর্মিণীর কোলে রাখা। সবাই কেমন জানি অবাক চোখে আমাদের দেখে আছে।

’আমার হৃদ স্পন্দন বন্ধ হওয়া ১১ মিনিট হলো আর আমাকে ফিরিয়ে আনার সবার চেষ্টার এ কথাগুলো বলেছিলেন আমার পাশে দাড়িয়ে থাকা একজন ডাক্তার। তিনি খুব অবাক হয়ে বলছিলেন যে তার জীবনে এমন ঘটনা নাকি তিনি কখনোই দেখেননি।

সেদিন কি আমার মৃত্যু হয়ে ছিলো কিনা জানি না তবে সেই ১১ মিনিটের অভিজ্ঞতার কথা বলতে পারি।

এই ১১ মিনিট ছিলো আমার এ পুরো জীবনে পাওয়া সবচেয়ে সুখের মুহূর্ত। এমন একটা শান্তির মুহূর্ত যা প্রকাশের কোনো সঠিক শব্দ আমার সত্যিই জানা নেই। শুধু একটা কথাই বলতে পারি, মৃত্যু যদি আসলেই এমন হয় তাহলে আমি বলবো মৃত্যুকে ভয় পাবার আসলেই কিছু নেই। মৃত্যুর স্বাদ সত্যিই অনেক অনেক অনেক মধুর, যন্ত্রণাহীন ও শান্তির।’

’দূরে কোথাও আছি বসে, হাত দুটি দাও বাড়িয়ে’ গানের মাধ্যমে বেশ জনপ্রিয়তা ও পরিচিতি লাভ করেন তিনি।

তারপর একে একে অনেক সফল ও জনপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন শ্রোতাদের। এ ছাড়া একক অ্যালবামে নিজের গাওয়া গানের জনপ্রিয়তা তো রয়েছেই। বৃষ্টি ঝরে যায়/দু’চোখে গোপনে, মন কাঁদে সারাবেলা, উজানের ঢেউ/তুই কারে খুঁজিস, অতৃপ্ত অনুভূতি/ভিজেছে ব্যাকুলতা অথবা হৃদয় দিয়ে ডাকছি প্রভৃতি গান জয় করে নিয়েছে বর্তমান তরুণ প্রজন্মসহ সব শ্রেণীর শ্রোতা হৃদয়। এ ছাড়া ’এই তো ভালোবাসা’ চলচ্চিত্রের জন্য কম্পোজিশন করেছেন টাইটেল গান।

ছোটবেলা থেকে বাবার হাতেই তার সংগীতের হাতেখড়ি। তার প্রথম একক অ্যালবাম ছিল ’অভিপ্রায়’ যেটা প্রকাশিত হয়েছিল ২০০৭ সালে। এরপর প্রতিবছরই একটি করে এ্যালবাম প্রকাশ করতেন তিনি।

কিন্তু ২০১৫ সালের পর আর কোন এ্যালবাম প্রকাশ করেন নি তিনি। তার প্রকাশিত এ্যালবামের প্রায় বেশ কিছু গান এখনো শ্রোতাদের মুখে মুখে রয়েছে।

তৌসিফ আহমেদ। মূলত বিরহ ভাগের আধুনিক গান গেয়ে থাকেন তিনি। নিজের কথা-সুর-কণ্ঠে সাজানো তার জনপ্রিয় গানের সংখ্যা প্রচুর।

তিনি একাধার একজন কন্ঠশিল্পী, সুরকার, গীতিকার ও সংগীত পরিচালকও। তার কথা, সুর ও সংগীতে অনেকেই নিজের কন্ঠে গান ধরেছেন, হয়েছেন শ্রোতাপ্রিয়। অনেকদিন ধরেই গানের জগত থেকে দূরে রয়েছেন তৌসিফ। খুব একটা গান নিয়ে হাজির হতে দেখা যায় না তাকে। চলতি বছরের প্রথম দিক থেকেই বেশ অসুস্থ রয়েছেন বলে বিডি২৪লাইভকে জানিয়েছিলেন তিনি।

Check Also

মেয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে মুখ খুললেন মিথিলা

তাহসানের সঙ্গে ১১ বছরের সংসার জীবনের সমাপ্তি ঘটানোর পর কলকাতার পরিচালক সৃজিত মুখার্জির সঙ্গে গাঁটছড়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published.